fbpx

হবিগঞ্জ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় এর শিক্ষা কার্যক্রম শুরু হচ্ছে ,যুক্ত হচ্ছে কৃষি গুচ্ছ পদ্ধতিতে।

কৃষি গুচ্ছ

দেশের সরকারি ৭টি কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষের গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষার আয়োজনে যুক্ত হচ্ছে আরও একটি সরকারি কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়। ফলে এই বর্ষ থেকে কৃষি গুচ্ছের সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষায় বিশ্ববিদ্যালয়ের সংখ্যা দাঁড়াবে ৮টিতে।নতুনভাবে যুক্ত হতে যাওয়া এই বিশ্ববিদ্যালয়টি হচ্ছে ‘ হবিগঞ্জ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ’। ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষে এই বিশ্ববিদ্যালয়ে তিনটি অনুষদের অধীনে ৩০ জন করে মোট ৯০ জন শিক্ষার্থী ভর্তি করা হবে। বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃষি অনুষদ, মৎস্য অনুষদ এবং প্রাণী চিকিৎসা ও প্রাণীসম্পদ বিজ্ঞান অনুষদে কৃষি গুচ্ছ পদ্ধতিতে শিক্ষার্থী ভর্তি করানো হবে বলে জানা গেছে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে হবিগঞ্জ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আবদুল বাসেত  বলেন, এবার প্রথমবারের মতো বিশ্ববিদ্যালয়ের তিনটি অনুষদে শিক্ষার্থী ভর্তি করানো হবে।“কৃষি গুচ্ছ পদ্ধতিতে আমরা যাবো। ফলে কৃষি গুচ্ছের বাকি ৭টিসহ এখন হবে মোট ৮টি। তবে এখনও ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষের ভর্তি কার্যক্রম নিয়ে বসেনি কমিটি।”

তথ্যমতে, ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষে প্রথমবারের মতো দেশের ৭টি কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় এবং কৃষি শিক্ষা প্রাধান্য পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়সমূহের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। এসব বিশ্ববিদ্যালয় হচ্ছে-বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি ও এনিম্যাল সাইন্স বিশ্ববিদ্যালয় ও খুলনা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়।

এরপর দ্বিতীয়বারের মতো ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষেও এসব বিশ্ববিদ্যালয়ে সমন্বিতভাবে এই ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। প্রথমবার ভর্তি পরীক্ষার আয়োজনের দায়িত্বে ছিল বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় আর দ্বিতীয়বার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়।

এবার দায়িত্ব কোন বিশ্ববিদ্যালয় পাচ্ছে, এ প্রশ্নের জবাবে হবিগঞ্জ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আবদুল বাসেত বলেন, ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষের ভর্তি কার্যক্রম নিয়ে বসা হয়নি। তবে গতবার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ছিল আর এবার ক্রোনোলজিকালি কৃষি গুচ্ছের আরেকটি বিশ্ববিদ্যালয় এই দায়িত্ব নেবে।

জানা যায়, বাংলাদেশের হাওর অঞ্চল খ্যাত বৃহত্তর সিলেটের হবিগঞ্জ জেলায় দেশের সপ্তম কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার আইনগত অনুমোদন হয় ২০২০ সালের ১০ সেপ্টেম্বর। এর আগে ২০১৪ সালের ২৯ নভেম্বর হবিগঞ্জ নিউফিল্ডে বিশাল জনসভায় জেলাবাসীর পক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নিকট চারটি বড় দাবি উপস্থাপন করেছিলেন জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি অ্যাডভোকেট মো. আবু জাহির এমপি।

দাবিগুলো ছিল- হবিগঞ্জে কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, মেডিকেল কলেজ ও বাল্লা স্থলবন্দর স্থাপন এবং শায়েস্তাগঞ্জকে উপজেলা বাস্তবায়ন করা। অন্যান্য দাবিগুলো কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় বিল পাস হওয়ার আগেই বাস্তবায়িত হয়।

হবিগঞ্জ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় আইনটি ২০২০ সালের ২৩ ডিসেম্বর চূড়ান্ত অনুমোদন দেয় মন্ত্রিসভা। পরে বিলটি গত ২৩ জুন সংসদে উত্থাপিত হলে পরীক্ষা করে প্রতিবেদন দেয়ার জন্য শিক্ষা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটিতে পাঠানো হয়। স্থায়ী কমিটি ৭ সেপ্টেম্বর বিলটির প্রতিবেদন জাতীয় সংসদে উপস্থাপন করে। ওই বছরের ১০ সেপ্টেম্বর হবিগঞ্জ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় বিল জাতীয় সংসদে পাস হয়।

এ বিশ্ববিদ্যালয়ে চারটি অনুষদ থাকবে বলে বিলে বিধান রাখা হয়েছে। অনুষদগুলো হলো কৃষি অনুষদ, মৎস্য অনুষদ, প্রাণী চিকিৎসা ও প্রাণীসম্পদ বিজ্ঞান অনুষদ এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি অনুষদ। তবে প্রথমবারের মতো ২০২১-২১ শিক্ষাবর্ষে তিনটি অনুষদে শিক্ষার্থী ভর্তি নেবে হবিগঞ্জে কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। কৃষি অনুষদ, মৎস্য অনুষদ এবং প্রাণী চিকিৎসা ও প্রাণীসম্পদ বিজ্ঞান অনুষদে ৩০ জন করে মোট ৯০ জন শিক্ষার্থী ভর্তি করানো হবে।

কৃষি গুচ্ছের আবেদনঃ  https://admission-agri.org/

Related Articles
Spread the love

Related Articles

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Back to top button
Don`t copy text!