fbpx

মেরিটাইম ভর্তি পরীক্ষায় যেসব ক্যালকুলেটর ব্যবহার করা যাবে

Calculator list for BSMRMU exam

বেশিরভাগ বিশ্ব‌বিদ্যালয়ই ভর্তি পরীক্ষায় ক্যালকুলেটর ব্যবহার করতে দেয় না। তবে যেসব বিশ্ব‌বিদ্যালয় লিখিত পরীক্ষা নেয় তারা সাধারনত ক্যালকুলেটর ব্যবহার করতে দেয়। এই পোস্টে আমরা দেখবো মেরিটাইম ভর্তি পরীক্ষায় যেসব ক্যালকুলেটর ব্যবহার করা যাবে তাদের তালিকা।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেরিটাইম বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা ৪টি ইউনিটে হয়ে থাকে। এর মাঝে ফ্যাকাল্টি অব মেরিটাইম গভর্ন্যান্স এন্ড পলিসি এবং ফ্যাকাল্টি অব শিপিং এডমিনিস্ট্রেশন এই দুই ইউনিটে ক্যালকুলেটর ব্যবহার করা যাবে না।

ফ্যাকাল্টি অব আর্থ এন্ড ওশান সাইন্স এবং ফ্যাকাল্টি অব ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড টেকনোলজি দুই ইউনিটে ক্যালকুলেটর ব্যবহার করা যাবে।

মেরিটাইম ভর্তি পরীক্ষায় যেসব ক্যালকুলেটর ব্যবহার করা যাবে:

 

Brands Models
Casio

fx-95ES PLUS, fx-100MS, fx-115MS, fx-350EX, fx-82EX, fx-350MS, fx-570ES, fx-570MS, fx-570ES PLUS, fx-991MS

Canon F718S, F718SA, F718SG, F718SGA
Sharp EL509X, EL532XH

 

 

Quick Links for Maritime University

 

২০১৩ সালে মেরিন ও মেরিটাইম সংশ্লিষ্ট উচ্চ শিক্ষার জন্য বাংলাদেশে প্রথম এবং একমাত্র বিশেষায়িত সরকারি বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেরিটাইম ইউনিভার্সিটি, বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠিত হয়। ( তবে এখন আরো কয়েকটি বিশেষায়িত বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে)

Related Articles

বাংলাদেশের ৩৭তম সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়।এটি বাংলাদেশে প্রথম, দক্ষিণ এশিয়ার দ্বিতীয় এবং বিশ্বের ১২ তম মেরিটাইম বিশ্ববিদ্যালয়। বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রথমবারের মতো স্নাতক (সম্মান) শ্রেণী চালুর অংশ হিসেবে ৩ জানুয়ারি ২০১৭ তারিখে বিশ্ববিদ্যালয়ের মিরপুর পল্লবীস্থ অস্থায়ী ক্যাম্পাসে বিএসসি ইন ওশানোগ্রাফি প্রোগ্রামটি শুরু হয়। এরপর ২০১৮সালে বিএসসি ইন নেভাল আর্কিটেকচার এন্ড অফশোর ইন্জিনিয়ারিং এর প্রথম ব্যাচের ক্লাস শুরু হয়। ২০১৯সালে আরো দুইটি প্রোগ্রামের ক্লাস শুরু হয়। এলএলবি ইন মেরিটাইম ল এবং বিবিএ ইন পোর্ট ম্যানেজমেন্ট এন্ড লজিটিক্স। ২০২০সালে বিএসসি ইন মেরিটাইম ফিশারিজ এর প্রথম ব্যাচের ভর্তি এবং ক্লাস শুরু হয়।

মিরপুর ১২তে (পল্লবী) দুইটি অস্থায়ী ক্যাম্পাসে বর্তমানে একাডেমিক কার্যক্রম পরিচালনা হচ্ছে। হামিদচর,বাকলিয়া,চট্টগ্রামে ইতিমধ্যে স্থায়ী ক্যাম্পাসের কাজ শুরু হয়ে গেছে। মেরিটাইম ক্যাম্পাস হবে বাংলাদেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মাঝে অন্যতম পরিকল্পিত একটি ক্যাম্পাস। কর্ণফুলী নদীর তীরে ১০৬.৬একর জমির উপর নির্মান হবে বিশ্ববিদ্যালয়টির স্থায়ী ক্যাম্পাস।

Full Application Process (A-Z) আবেদন করুন ঘরে বসেই

Spread the love

Related Articles

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Back to top button
Don`t copy text!